কালোজিরা তেল ও মধুর উপকারিতা
explore

কালোজিরা তেল ও মধুর উপকারিতা

কালোজিরা-তেল-ও-মধু

আজকে আমরা এমন দুটি খাবার নিয়ে আলোচনা করব, স্বয়ং রাসুল ﷺ যে খাবার দুটিকে মানুষের জন্য কল্যাণকর বলে অভিহিত করেছেন। হ্যাঁ, আপনারা ঠিকই ধরেছেন, সেই আশ্চর্য দুটি খাবার হল কালোজিরা ও মধু

এই উভয় খাবারই স্বাস্থ্যের জন্য উপকারি হিসেবে সমাদৃত। যারা এ দুটো খাবার একসাথে নিয়মিত খায়, তাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় এবং আরও নানা রোগ থেকে তারা থাকে নিরাপদ। কালোজিরা ও মধুর মিথস্ক্রিয়া এর গুণাবলি বলে শেষ করা যাবে না।

এ সম্পর্কে হাদীসে রাসুল ﷺ বলেন –

‘’মৃত্যু ব্যতিত সর্ব রোগের মহৌষধ কালোজিরা’’।

হযরত আনাস (রাঃ) বর্ণনা করেন, নবী করীম ﷺ এরশাদ করেন, ‘’যখন রোগ-যন্ত্রণা খুব বেশী কষ্টদায়ক হয় তখন এক চিমটি পরিমাণ কালোজিরা নিয়ে খাবে। তারপর পানি ও মধু সেবন করবে’’ (তাবরানী)

কালোজিরা তেল ও মধুর মিলিত শক্তিঃ উপকারিতা ও ব্যবহারবিধি

  • মাথা ব্যথার চিকিৎসায়:

১/২ চামচ কালোজিরার তেল মাথায় ভালোভাবে লাগালে এবং সমপরিমাণ মধুসহ দিনে তিনবার করে ২/৩ সপ্তাহ খেলে মাথা ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

  • সর্দি নিরাময়ে:

সর্দি নিরাময়ে এই দুই খাবারের মিথস্ক্রিয়া সেরা পথ্য। এক চা চামচ কালোজিরার তেল সমপরিমাণ মধু বা এক কাপ রং চায়ের সাথে মিশিয়ে দৈনিক দুই থেকে তিন বার খেলে সর্দি সমস্যায় ভাল সমাধান পাবেন।

  • চর্মরোগ সারাতে:

চর্ম রোগে আক্রান্ত স্থান ধুয়ে পরিষ্কার করে তাতে কালোজিরার তেল মালিশ করতে হবে। কালোজিরার তেল সমপরিমান মধু বা এককাপ রং চায়ের সাথে এক চামচ কাঁচা হলুদের রসে মিশিয়ে দৈনিক তিন বার করে ২ থেকে ৩ সপ্তাহ খেলে চর্মরোগ দূর হয়ে যায়।

  • ব্লাড প্রেসারনিয়ন্ত্রনে রাখতে:

সমস্ত শরীরে কালোজিরার তেল মালিশ করে এবং রসুনের দুটি থেকে তিনটি কোষ প্রতিদিন সকালে চিবিয়ে খেয়ে সূর্যেরতাপে কমপক্ষে আধাঘন্টা থাকলে এবং এক চা-চামচ কালোজিরার তেল একই পরিমান মধুসহ প্রতি সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন খেলে ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ থাকবে।

  • মায়েদের দুধ বৃদ্ধির জন্য:

যেসব মায়েরা বুকে দুধ আসে না বলে অভিযোগ করে থাকেন, তাদের জন্য কালোজিরা মহৌষধ। প্রতি রাতে শোয়ার আগে মায়েরা ৫ থেকে ১০ গ্রাম কালোজিরা মিহি করে দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খেলে আশা করা যায় অল্প কিছুদিনের মধ্যেই ইনশাআল্লাহ্ দুধের প্রবাহ বেড়ে যাবে ।

  • গ্যাষ্ট্রীক বা আমাশয় নিরসনে:

এক চা-চামচ কালোজিরা তেল সমপরিমাণ মধু সহ দিনে তিন বার করে দুই থেকে তিন সপ্তাহ খেয়ে দেখুন। ইনশাআল্লাহ্‌, গ্যাস্ট্রিক বা আমাশয় থেকে মুক্তি পাবেন।

স্বাস্থ্যকর খাবারের নিরাপদ প্ল্যাটফর্ম অর্গানিকমুদি

ভেজালমুক্ত খাবার নিয়ে যখন চারিদিকে হাহাকার, তখন নিরাপদ খাবারের অনলাইন প্ল্যাটফর্ম অর্গানিকমুদি আছে আপনাদের পাশে। আমাদের কাছ থেকে অনলাইনে অর্ডার করতে পারবেন যেকোনো ভেজালমুক্ত নিরাপদ খাবার, অথবা চলে আসতে পারেন আমার শপে।

আমরা আমাদের প্রতিটি ক্রেতাকে আমাদের পরিবারের সদস্য মনে করি। কাজেই, নিজ পরিবারের মতই, আপনার স্বাস্থ্যের দিকে আমাদের খেয়াল আছে শতভাগ। চলে আসুন আমাদের কাছে, নিশ্চিন্তে।

Categories : Blog